Captain Phillips movie review in bangla. সত্য ঘটনার উপর নির্মিত সিনেমা।

ক্যাপ্টেন ফিলিপস মুভি রিভিউ

Captain Phillips movie poster


 ছোটবেলায় আমরা সবাই-ই কোনো না কোনো সময় মায়ের মুখে জলদস্যুদের দ্বারা নৌকা বা ট্রলার ডাকাতির গল্প শুনেছি। কিংবা টিভির পর্দায় বাংলা সিনেমার জলদস্যুদের সাথেও কম বেশি সবাই-ই মোটামুটি পরিচিত। যদিও গল্প বা সিনেমাগুলোর নির্মাণশৈলী অতটা ভালো ছিলো না তবুও গা ছমছম করার মতো একটা অবস্থা তৈরি হতো সবার বেলায়-ই। এখন ভাবুন তো যদি এরকমই কোনো কাহিনী হয়ে থাকে বাঘা বাঘা কোনো কন্টেইনারবাহী জাহাজের সাথে! আর তাও মাঝ সমুদ্রে!

হ্যা এরকমই এক বাস্তব ঘটনার উপর নির্মিত হয়েছে পল গ্রিনগ্রাস পরিচালিত ও বিখ্যাত অভিনেতা টম হাঙ্কস ( ক্যাপ্টেন ফিলিপস ) ও বার্কহ্যাড আবদি ( আবদেলি মুসে ) অভিনিত ২০১৩ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত "ক্যাপ্টেন ফিলিপস" মুভিটি। মুভিটি ২০০৯ সালের MV Maersk Albama হাইজ্যাকিংয়ের সত্য কাহিনীর উপর নির্মিত। সত্য কাহিনীকে যে কিভাবে সিনেমায়ও সত্যের স্বাদ দেয়া যায় তা উপরের সব বাঘা বাঘা পরিচালক ও অভিনেতারা করে দেখিয়েছেন।
ক্যাপ্টেন ফিলিপস ওমানের সালালাহ বন্দর থেকে নিরস্ত্র জাহাজ MV Maersk Albama এর কমান্ড নিয়ে গার্ডাফুই চ্যানেল দিয়ে কেনিয়ার মোম্বাসা বন্দরের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হলেন। পথেই সোমালিয়া উপকুলের জলদস্যুদের কবলে পড়লো MV Maersk Albama. পরিস্থিতি খারাপ দেখে ক্যাপ্টেন ফিলিপস তাৎক্ষণিকভাবে Northwood, UK তে অবস্থিত US Maritime emergency line এর কাছে সাহায্য চায়। আর এখান থেকেই শুরু হয় টান টান উত্তেজনাকর পরিস্থিতি। জাহাজটি জলদস্যুদের কবলে পড়ার এক পর্যায়ে ক্যাপ্টেন ফিলিপসও তাদের হাতে অপহৃত হন। এই সংবাদ যখন US এ তে পৌঁছায় তখন হোয়াইট হাউজ থেকে নির্দেশ আসে, যেভাবে হোক ক্যাপ্টেন ফিলিপসকে নিরাপদে ফিরিয়ে আনার।

শেষ পর্যন্ত কি US Navy ক্যাপ্টেন ফিলিপসকে নিরাপদে ফিরিয়ে আনতে পারে! দেখতে হলে যে দেখতে হবে দারুণ এই মুভিটি। চমৎকার সব সিনেমাটোগ্রাফি ও গহীন সমুদ্রের সব দৃশ্য দেখতে দেখতে কখন যে হারিয়ে যাবেন তা হয়তো টেরও পাবেন না। তাহলে আর দেরী কিসে! সময় করে বসে পড়ুন এই মাস্টারপিসটি গিলতে। এটুকু বলতে পারি যে সময় নষ্ট হবে না।


স্ক্রিনশট





Post a Comment

6 Comments

  1. এরকম একটি মুভিই খুঁজছিলাম। ধন্যবাদ। আজই গিলতে বসবো।

    ReplyDelete
  2. যেভাবে বললেন তাতে না দেখে পারা যাবে না।

    ReplyDelete
  3. এটি সত্যিই মাস্টারপিস।

    ReplyDelete
  4. বাহ! অসাধারণ ছিল লেখনী টি। স্ক্রিনশট গুলো যথাযথ ছিল। পোস্টে ২-৩ টি HEADING TAG ব্যবহার করলে ভালো হতো। সার্চ ইঞ্জিন সেই ট্যাগ গুলোর প্রারায়রটি বেশি দেয়

    ReplyDelete
    Replies
    1. পরামর্শের জন্য ধন্যবাদ। ভালোবাসা রইলো।

      Delete